পোল্যান্ড টুরিস্ট ভিসা 2022 | পোল্যান্ড টুরিস্ট ভিসার খরচ কত

পোল্যান্ড টুরিস্ট ভিসা 2022


পোল্যান্ডের টুরিস্ট ভিসা 2022 নিয়ে আজকে আমরা বিস্তারিতভাবে তুলে ধরব যারা বাংলাদেশ থেকে পোল্যান্ড টুরিস্ট ভিসার মাধ্যমে যেতে চান অথবা সিঙ্গাপুর মালয়েশিয়া দুবাই অন্যান্য দেশ থেকে টুরিস্ট ভিসা নিয়ে পোল্যান্ডে যেতে চান তাদের জন্য আজকের এই কনটেন্ট। তাহলে চলুন পর্যায়ক্রমে আমরা আজকে দেখে নেই টুরিস্ট ভিসা কিভাবে পাবেন এবং আবেদন কিভাবে করবেন এবং কত টাকা খরচ হতে পারে।


 যারা বাহির দেশে আছেন তারা অনেকেই কাজের উদ্দেশ্যে অথবা ঘুরাঘুরির উদ্দেশ্যে পোল্যান্ডে পাড়ি জমিয়ে থাকেন তবে সে ক্ষেত্রে অনেকেই ভিসা প্রসেসিং সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য জানে না। তারা জানেনা টুরিস্ট ভিসা কিভাবে পাবেন পোল্যান্ডের অথবা টুরিস্ট ভিসা করতে হলে কি কি রিকোয়ারমেন্ট লাগে তা কারো জানা নেই। কারণ পোল্যান্ডের নীতি অনুযায়ী বেঁচে থাকতে হলে অবশ্যই আপনাকে কয়েকটি বিষয় ভালোমতো আপনার আবেদনপত্রের সাথে এডজাস্ট করতে হবে তা না হলে আপনি টুরিস্ট ভিসার জন্য অ্যাপ্রভাল পাবেন না।


পোল্যান্ড টুরিস্ট ভিসা 2022

পোল্যান্ডের টুরিস্ট ভিসা পেতে হলে আপনাকে 6 মাস মেয়াদী একটি ভ্যালিড পাসপোর্ট থাকতে হবে। সেই সাথে আপনার ব্যাংক স্টেটমেন্ট সহ অন্যান্য দেশে ভিজিট করেছেন সেই ভিজিটের প্রমাণ হিসাবে আপনার ভিসা অথবা ব্যাংক স্টেটমেন্ট চেক করা হবে এই সমস্ত বিষয় চেক করার পড়ে আপনি টুরিস্ট ভিসার জন্য আবেদন করতে পারবেন। আবেদন করার সর্বোচ্চ 28 দিনের মধ্যেই আপনি ভিসার জন্য মেইল অথবা ফোন কলের মাধ্যমে নিশ্চিত করবে তারা। আর এই সম্পূর্ণ প্রসেস নিয়ে নিয়েছি আমরা বিস্তারিতভাবে তুলে ধরেছি।


করণা মহামারীর পর থেকে নতুনভাবে টুরিস্ট ভিসা পাওয়া যাচ্ছে পোল্যান্ডের তবে সে ক্ষেত্রে নির্দিষ্ট রিকোয়ারমেন্ট মেনে তারপরেই আপনাকে ভিসার জন্য আবেদন করতে হবে। আরে ভিসার জন্য আবেদন করতে হলে অবশ্যই করণা ভ্যাকসিন বাধ্যতামূলক থাকা লাগবে সেই সাথে আপনার অন্যান্য দেশে যে ঘোরাঘুরি করেছেন তার প্রমাণ হিসাবে আপনার ট্রাভেল হিস্ট্রি দেখাতে হতে পারে। কিসে পর্যায়ক্রমে ভিসা কিভাবে আবেদন করবেন সে বিষয়টি তুলে ধরা হয়েছে।


পোল্যান্ড শহর একটি শান্তি প্রিয় শহর যেখানে বহু দেশের মানুষ বসবাস করে এবং সেখানে বিভিন্ন দেশের মানুষ বিজনেস করার উদ্দেশ্যে অথবা ঘুরাঘুরির উদ্দেশ্যে প্রতিনিয়ত পাড়ি জমাচ্ছে তাই আপনি যদি বাংলাদেশ থেকে অথবা অন্যান্য দেশ থেকে যেতে চান তাহলে আপনি খুব সহজেই যেতে পারবেন বর্তমানে করণা মহামারীর পর থেকে আবারো নতুনভাবে ভিসা কার্যক্রম চালু করা হয়েছে।


কানাডা জব ভিসা 2022  | কানাডা ওয়ার্ক পারমিট ভিসা


পোল্যান্ডের টুরিস্ট ভিসা কিভাবে পাবেন

পোল্যান্ডের ভিসা পেতে হলে আপনাকে পোল্যান্ডের যে কোন অ্যাপস এর মাধ্যমে আপনাকে আবেদন করতে হবে অথবা আপনি যদি দেশের বাইরে থাকেন সেক্ষেত্রে আপনার জন্য খুব একটি কঠিন ব্যাপার হবে না শুধুমাত্র পোল্যান্ড এম্বাসি এর মাধ্যমে খুব সহজে আবেদন করতে পারবেন। আবেদন করতে হলে আপনাকে অবশ্যই মাথায় রাখতে হবে আপনি কত দিনের জন্য যাচ্ছেন পোল্যান্ডের শুধুমাত্র 30 থেকে 90 দিন মেয়াদি টুরিস্ট ভিসা করা যায়। পরবর্তীতে যদি আপনি ভিসার মেয়াদ বাড়াতে চান তাহলে সেখান থেকেই খুব সহজেই ভিসার মেয়াদ বাড়াতে পারবেন।


অনেকে আছেন যারা টুরিস্ট ভিসা 30 দিনের মেয়াদে গিয়েও পরবর্তীতে আরো বাড়িয়ে নিয়েছে এবং 90 দিন থাকার পরেও আবারো ভিসার মেয়াদ বাড়িয়ে নিয়েছে। তারা সাধারণত বিভিন্ন কাজের উদ্দেশ্যে এগিয়ে থাকে অথবা বিজনেস করার উদ্দেশ্যে তবে সাধারণত পোল্যান্ডে গিয়ে আপনি বিজনেস বা কাজ করার পারমিশন রাখেন না কিন্তু অবৈধভাবে তারা এই কার্যক্রম পরিচালনা করে যাচ্ছে তবে এক্ষেত্রে এখন পর্যন্ত কোনো সমস্যা দেখা যায়নি।


তবে পরবর্তীতে কোনো যদি সমস্যা হয়ে থাকে তাহলে খুব একটা সমস্যা হয় না কিন্তু যদি আপনি জটিল কোনো সমস্যা করে থাকেন তাহলে আপনাকে দেশে পাঠিয়ে দিবে অথবা আপনি যে দেশটিকে নিয়েছেন সেখানে আপনাকে পাঠিয়ে দেওয়া হবে এবং আপনার ভিসা বাতিল করে দেওয়া হবে। টুরিস্ট ভিসার মাধ্যমে আপনি নানা রকমের কাজের সুবিধা নিজেই তৈরি করে নিতে পারবেন।


রোমানিয়া কোন কাজের চাহিদা বেশি?   সুযোগ সুবিধা কেমন এবং সেলারি কত?


 পোল্যান্ড টুরিস্ট ভিসার খরচ কত

বর্তমানে পোল্যান্ডের টুরিস্ট ভিসার দাম হল 277 ডলার। করণা মহামারীর পরে ভিসা কার্যক্রম চালু করা হয়েছে তাই নতুন রিকোয়ারমেন্ট এর ভিসা পেতে হলে আপনাকে অবশ্যই 277 খরচ করা লাগবে তারপরে আপনি পোল্যান্ডের টুরিস্ট ভিসা পাবেন। তবে ভিসার অন্যান্য কার্যক্রম এবং কাগজপত্র ক্ষেত্রে আপনার টাকার পরিমাণটা কিছু বেড়ে যেতে পারে।


টুরিস্ট ভিসা পেতে হলে কি কি কাগজপত্র লাগবে

পোল্যান্ডের টুরিস্ট ভিসা পেতে হলে আপনাকে তাদের দেওয়া কিছু ডিপারমেন্ট গুলো আছে সেগুলো আপনাকে আবেদনপত্রের সাথে এডজাস্ট করতে হবে তাছাড়া আপনি পোল্যান্ডের টুরিস্ট ভিসা পাবেন না। এবং এই ভিসা কার্যক্রমের জন্য আপনাকে অবশ্যই প্রিভিয়াস যে আপনি ট্রাভেল করেছেন সেই বিষয়ে আপনাকে প্রমাণ দিতে হবে নিচে কি কি কাগজপত্র লাগবে তা তুলে ধরা হলো।


  • 6 মাস মেয়াদি পাসপোর্ট
  • বিমানের এয়ার টিকেট এর ফটোকপি
  • বিমানের ফিরে আসার জন্য  টিকিট এর ফটোকপি
  • হোটেল বুকিং এর ফটোকপি
  • আপনার ব্যাংক স্টেটমেন্ট এর ফটোকপি
  • অন্যান্য দেশে ট্রাভেলের প্রমাণ
উপরোক্ত কাগজ গুলোর মাধ্যমে আপনি খুব সহজেই আবেদনপত্রের সাথে টাচ করলেই ভিসার জন্য অ্যাপ্রভাল পেয়ে যাবেন তবে সে ক্ষেত্রে অবশ্যই মনে রাখবেন আপনি যে আবেদন ফর্মটি পূরণ করবেন সেই আবেদন ফরমে বিস্তারিত তথ্য সম্পূর্ণ নির্ভুলভাবে পূরণ করে তারপরেই আবেদনপত্র জমা দিবেন।


কিভাবে টুরিস্ট ভিসার জন্য আবেদন করবেন

অনলাইনের মাধ্যমে খুব সহজেই আপনি পোল্যান্ডের টুরিস্ট ভিসার জন্য আবেদন করতে পারবেন অথবা আপনি সরাসরি এম্বাসির মাধ্যমে আবেদন করতে পারবেন। বাংলাদেশের মাধ্যমে যদি আপনি করতে চান তাহলে সরাসরি বাংলাদেশ থেকে পারবেন অথবা এর আগে যেমন দিল্লির এম্বাসি এর মাধ্যমে মাধ্যমে খুব সহজেই বাংলাদেশ থেকে আবেদন করা যেত তবে বর্তমানে দিল্লির মাধ্যমে করা যাচ্ছে না চাইলে আপনি বাংলাদেশ থেকেও পোল্যান্ডের টুরিস্ট ভিসার জন্য আবেদন করতে পারবেন।


টুরিস্ট ভিসা পেতে কতদিন সময় লাগবে

উপরোক্ত কার্যক্রম সুষ্ঠুভাবে ফিলাপ করে দেওয়ার পরে পোল্যান্ডের ভিসা পেতে হলে আপনাকে 28 দিন থেকে 38 দিন পর্যন্ত সময় দেওয়া লাগবে এরমধ্যে আপনাকে মেসেজ অথবা ফোন কলের মাধ্যমে নিশ্চিত করে দিবে যে আপনার ভিসা অ্যাপ্রভাল পেয়েছেন তবে পরবর্তীতে। কোন সময় যদি আপনাকে ভেরিফিকেশন এর জন্য প্রয়োজন হয় তাহলে ফোন অথবা বিভিন্ন মাধ্যমে আপনাকে ভেরিফিকেশন করা হতে পারে তাই অবশ্যই আপনার ফোন অন রাখবেন মানে আপনি যে নাম্বারটি ভিসার জন্য দিয়ে রেখেছেন সেই নাম্বারটি অবশ্যই সাথে রাখবেন।


রোমানিয়া কোন কাজের চাহিদা বেশি?


পোল্যান্ডের টুরিস্ট ভিসার মাধ্যমে কাজ

অনেকেই আছে যারা দুবাই সিঙ্গাপুর মালয়েশিয়া থেকে সরাসরি পোল্যান্ডের টুরিস্ট ভিসা নিয়ে সেখানে গিয়ে কাজে নিয়োজিত আছে বর্তমানে অনেকেই এই মাধ্যম অবলম্বন করে পোল্যান্ডে অবস্থান করছে। এটা একটি অবৈধ উপায়ে পোল্যান্ডের অবস্থান করা তবে পোল্যান্ডের নিয়ম নীতি অনুযায়ী সেখানে গিয়ে কাজ করা আইনত কোন অপরাধ না তবে টুরিস্ট ভিসার মাধ্যমে কাজ করা একটি আইনত অপরাধ তবে সেই বিষয়ে সেদেশের সরকার এখন পর্যন্ত তেমন কোনো সমস্যা তৈরি করেনি। তবে সজাগ থাকা উচিৎ যে যেকোনো সময় সমস্যা হতে পারে তাই অবশ্যই আগে থাকতেই যেকোনো পদক্ষেপ নিতে হবে।


এই ভিসার মাধ্যমে গিয়ে সাধারোনত হোটেল কর্মী বা রেস্টুরেন্টে অবস্থান করে তারা কাজ করছে তবে তারা নিশ্চিত করেছে যে তারা প্রতি মাসে ভিসার আবেদন করে ভিসার মেয়াদ বাড়িয়ে নিছে। সেই হিসাবে যারা এখনো পোল্যান্ডের টুরিস্ট ভিসা নিয়ে যেতে চাচ্ছেন তারা অন্যান্য দেশ থেকে যেতে পারবেন তবে অবশ্যই সাবধানতার সাথে কাজগুলো পরিচালনা করা লাগবে তা না হলে আপনার জন্য ট্রাভেল করা সম্ভব নয়।


বিদেশ যাওয়ার জন্য কোন ব্যাংক লোন দেয় দেখে নিন


সাবধানতা

টুরিস্ট ভিসা আবেদনের জন্য সরাসরি আপনি অনলাইনের মাধ্যমে জানতে পারবেন অথবা অফলাইনে এর মাধ্যমে বাংলাদেশের বিভিন্ন ভিসা এজেন্সি সঙ্গে কথা বলেও টুরিস্ট ভিসার জন্য আবেদন করতে পারবেন। ভিসা কার্যক্রম শেষ হওয়ার পরে অনলাইনের মাধ্যমে আপনি পোল্যান্ডের ভিসা বা অন্যান্য ভিসা সবগুলোই চেক করে নিবেন কারণ আপনাকে হয়তো বা সাধারণ তো ভুলভাল ভিসা দিতে পারে সেই বিষয়টি অবশ্যই নজরে রাখবেন বিশ্বস্ত কাউকে দিয়ে ভালোমতো দেখে নেবেন অথবা বাংলাদেশের অন্যান্য ট্রাভেল যে কোম্পানি রয়েছে সেই কোম্পানির সঙ্গে আপনি কথা বলে আপনার বিষয়টি দেখে নিতে পারেন।



Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url