রোমানিয়া ওয়ার্ক পারমিট ভিসা ২০২২ | রোমানিয়া ভিসা প্রসেসিং | রোমানিয়া যেতে কত টাকা লাগে

    রোমানিয়া ওয়ার্ক পারমিট ভিসা ২০২২ | রোমানিয়া ভিসা প্রসেসিং | রোমানিয়া যেতে কত টাকা লাগে


    অন্যান্য দেশের মতো রোমানিয়ার ভিসা পাওয়া অত সহজ নয় বাংলাদেশের জন্য রোমানিয়া ভিসা পাওয়া একটি স্বপ্নের মত। তাই অনেকেই সে দেশে পাড়ি জমাতে চান কারণ এটি সেনজেনভুক্ত কান্ট্রি হতে যাচ্ছে খুব শীঘ্রই। আমরা প্রতিনিয়ত যে প্রশ্নগুলো পাইতা প্রত্যেকটি প্রশ্নের সমাধান দেয়ার চেষ্টা করব এই কনটেন্ট এর মাধ্যমে তাই চলুন দেখে নেওয়া যাক রোমানিয়া ওয়ার্ক পারমিট ভিসা 2022 এবং রোমানিয়া ভিসা প্রসেসিং সহ নানা প্রশ্নের উত্তর যেমন রোমানিয়া যেতে কত টাকা লাগে রোমানিয়া থেকে ইতালি যাওয়ার উপায় রোমানিয়া গার্মেন্টস ভিসা এসমস্ত নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা


    বর্তমানে ইতিমধ্যে অনেকেই রোমানিয়া কাজের ভিসা নিয়ে যাত্রা শুরু করেছে। এবং তারা সকলেই স্থায়ীভাবে বসবাস শুরু করেছেন মধ্যপ্রাচ্য বাজারের মধ্যে নতুন লোক নেওয়া বন্ধ থাকায় স্বাভাবিকভাবে অভিবাসন শ্রমিকরা যাত্রা শুরু করেছে। রোমানিয়ার কাজ সম্পর্কে জানার আগ্রহ ইচ্ছা অনেকেরই আছে তাহলে চলুন পর্যায়ক্রমে দেখে নেওয়া যাক বিষয়গুলো নিয়ে


    রোমানিয়া দেশ কেমন

    প্রথমেই জেনে নেওয়া যাক রোমানিয়া দেশটি কেমন। রোমানিয়া একটি দক্ষিণ পূর্ব ইউরোপের একটি রাষ্ট্র ধরা হয় তার রাজধানীর নাম হচ্ছে বুখারেস্ট। রোমানিয়া হলো ইউরোপ ইউনিয়নের মধ্যে সপ্তম বৃহত্তম জনসংখ্যার একটি দেশ হিসেবে ধরা হয়। রোমানিয়ার উত্তর-পূর্বে অবস্থান করে যে সমস্ত দেশ গুলো তার মধ্যে হচ্ছে হাঙ্গেরি সার্বিয়া এবং দক্ষিনে রয়েছে বুলগেরিয়া দানিয়ুব নদী রয়েছে। স্বাধীনতার পূর্বে উসমানীয় সাম্রাজ্য একটি অংশ ছিল। এটি 2007 সাল হতে ন্যাটোর সদস্য হিসেবে ধরা হতো এবং খুব দ্রুত ইউরোপীয় ইউনিয়নে যোগ দিতে যাচ্ছে রোমানিয়া। আয়তন হল 2 লক্ষ 38 হাজার 400 বর্গ কিলোমিটার। বর্তমানে জনসংখ্যা হল এক কোটি 99 লাখ এরও বেশি। 


    রোমানিয়া ওয়ার্ক পারমিট ভিসা ২০২২

    রোমানিয়া ওয়ার্ক পারমিট ভিসা পাওয়ার জন্য আপনাকে নির্দিষ্ট কিছু বিষয়ের প্রতি অবশ্যই জেনে নেওয়া লাগবে তাহলে চলুন দেখে নেওয়া যাক রোমানিয়া ওয়ার্ক পারমিট ভিসা পাওয়ার জন্য কি কি কাজগুলো করা লাগবে আপনার কি কি কাগজপত্র নেওয়া লাগবে সেই বিষয়টা নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা। রোমানিয়ায় নোটারি করতে মিনিমাম 7 থেকে 10 দিন সময় নিয়ে থাকে এরপর আপনার সমস্ত ফাইলগুলো রোমানিয়া ইমিগ্রেশনে জমা কারণে হয়ে থাকে। 


    এগুলো সব ইমিগ্রেশনে জমা হওয়ার পরে একটা স্লিপ দিয়ে দিবে আপনাকে।  এবং সেটাতে লেখা থাকবে যেগুলো সেগুলো জমা করতে হবে এবং কবে উত্তোলন করবেন এবং কতজনের ফাইল একসাথে জমা করানো হয়েছে সেগুলো উল্লেখ থাকবে। 


    এবং আপনার কন্ট্যাক লেটার সহ সকল ডকুমেন্ট এর হার্ডকপি সহ আপনার প্রয়োজনীয় কাগজপত্র আপনার নিজস্ব ঠিকানায় কুরিয়ার করে পাঠিয়ে দিবে। এবং সেই বিষয়গুলো নিয়ে ছয় মাসের ট্রাভেল ইন্সুরেন্স তৈরি করে রোমানিয়ার মিনিস্ট্রিতে সবগুলো ফাইলের স্ক্যান করে অনলাইনে জমা দিতে হবে। অনলাইনে জমা দেওয়ার পরে মনে রাখবেন কোম্পানি থেকে একটি ইমেইল অথবা একটি সাপোট হিসেবে যে কোন ডকুমেন্ট অবশ্যই নিয়ে নিবেন এতে করে ভিসা পেতে আপনার জন্য অনেকটাই সুবিধা হবে। 


    আপনি অনলাইনে সমস্ত কার্যক্রম শেষ করার পরে কয়েকদিনের মধ্যেই আপনাকে এম্বাসী থেকে অ্যাপার্টমেন্ট দিয়ে দিবে। আর আপনি সেটাকে প্রিন্ট করে দিল্লিতে অবস্থানরত রোমানিয়া এম্বাসি তে তারিখ অনুযায়ী কাগজ গুলো পাঠিয়ে দিবেন এবং নিজে গিয়ে সেখানে জমা করে আসবেন সেখানে কোনো রকমের জিজ্ঞাসাবাদ এবং কোন বিষয়ই থাকবে না আপনি সরাসরি গিয়ে জমা দিতে পারবেন। এবং 14 থেকে 15 দিনের মধ্যেই স্টিকার করে দিবে আপনার পাসপোর্টে। 


    জাপানে কাজের ভিসা ২০২২ | জাপান ভ্রমণ ভিসা | জাপান স্টুডেন্ট ভিসা

    রোমানিয়া ভিসা প্রসেসিং

    রোমানিয়া ভিসা প্রসেসিং করতে কি কি কাগজপত্র লাগবে এবং কত দিন সময় লাগবে এবং কোন বিষয়গুলো আপনার জেনে নেওয়া লাগবে সেই বিষয় নিয়ে নিচে বিস্তারিত তুলে ধরা হলো। এবং রোমানিয়া এম্বাসি তে কোন কোন কাগজপত্র লাগবে তার একটি লিস্ট নিচে তুলে দিলাম


    রোমানিয়া এম্বাসিতে যা লাগবে

    নিচের দেওয়া প্রয়োজনীয় কাগজপত্র গুলো অবশ্যই আপনার ভিসা প্রসেসিংয়ের জন্য লাগবে তাই এই সমস্ত কাগজপত্র ভুলগুলো আগেই সমস্ত বিষয় গুলো ঠিক করে রাখবেন। দেখা যাচ্ছে আপনার এনআইডি অথবা বার্থ সার্টিফিকেটে যদি কোন ভুল থাকে এবং আপনার ভিসা কার্যক্রমে যদি কোনো জটিলতা থাকে তাহলে সেগুলো আগেই ঠিক করে রাখবেন। 

    • আপনার একটি অরজিনাল পাসপোর্ট লাগবে 1 বছর মেয়াদী
    • পুলিশ ক্লিয়ারেন্স সার্টিফিকেট লাগবে
    • ছয় মাসের ট্রাভেল ইন্সুরেন্স
    • ভিসা অ্যাপ্লিকেশন ফর্ম
    • বুকিং টিকেট অবশ্যই কনফার্ম করা
    • ওয়ার্ক পারমিট এর কপি
    • কন্টাকটারের কপি
    • দুই কপি ছবি পাসপোর্ট সাইজের

    ইসলামী ব্যাংক প্রবাসী লোন | ইসলামী ব্যাংক প্রবাসী লোন পদ্ধতি ২০২২


    রোমানিয়া যেতে কত টাকা লাগে

    করণা মহামারীর কারণে দেশে অনেক দিন যাবত বৈদেশিক কার্যক্রম বন্ধ থাকায় নতুন ভাবে আবার চালু হয়েছে তাই যারা রোমানিয়াতে যেতে চাচ্ছেন তাদের জন্য একটি বিষয় জেনে রাখা উচিত যে আগের তুলনায় কিছুটা বিমান ভাড়া সহ ভিসা প্রসেসিং এর ক্ষেত্রে টাকা কিছু বেড়ে গিয়েছে। তাই এখন আপনার ভিসার খরচ পড়তে পারে মিনিমাম 84 টাকা থেকে 9 লাখ টাকা পর্যন্ত। কারণ বর্তমান সময়ে বিভিন্ন দেশের যাতায়াত খরচ অনেকটাই বেড়ে গিয়েছে এটি শুধুমাত্র একটি ধারণা দেওয়া হল 8 থেকে 9 লক্ষ টাকা লাগতে পারে


    রোমানিয়া থেকে ইতালি

    রোমান থেকে ইতালি যাওয়ার জন্য আপনাকে একটি মাধ্যম অবলম্বন করা লাগতে পারে। আপনি যদি রোমান থেকে ইতালিতে যেতে চান তাহলে আপনি ভ্রমণ ভিসার মাধ্যমে যেতে পারবেন। তবে যদি আপনি কাজ করার উদ্দেশ্যে যেতে চান তাহলে আপনাকে সেখানে ভ্রমণ ভিসা থাকা অবস্থায় কাজে লেগে করতে হবে এবং কাজ করতে করতে আপনি দুই মাস সময় পাবেন এই দুই মাসের মধ্যে আপনাকে তাদের এম্বাসিতে গিয়ে আপনার যে কোন একটি বিষয় তুলে ধরবেন যেমন আমি দেশে ফিরতে পারছিনা আমার দেশে সমস্যা রাজনৈতিক সমস্যা এমন একটি বিষয় তুলে ধরবেন। তারপরে আপনি ইতালি ভিসা পাওয়ার জন্য আপনাকে যাচাই-বাছাই করে ভিসা দেওয়ার ব্যবস্থা করব। তবে অবশ্যই আপনার কারণ টা জানো স্ট্রং হয় এমন একটি কারণ দেখাতে হবে


    রোমানিয়া গার্মেন্টস ভিসা

    বর্তমানে রোমানিয়া গার্মেন্টস নিয়ে বাংলাদেশ থেকে এবং বিভিন্ন দেশ থেকে পাড়ি জমাচ্ছে সেখানে গার্মেন্ট ভিসা নিয়ে আপনি মাসে 1 থেকে 2 লক্ষ টাকা পর্যন্ত ইনকাম করতে পারবেন। বর্তমানে রোমানিয়ার গার্মেন্টস কোম্পানিগুলো বৈদেশিক ভাবে রপ্তানি করছে। তাই তাদের গার্মেন্টস শ্রমিকের সংখ্যা দিনদিন বৃদ্ধি করার জন্য বিভিন্ন দেশ থেকে নিয়োগ দিয়ে থাকেন। তাই যারা বাংলাদেশসহ বিভিন্ন দেশ থেকে রোমানিয়া যেতে চাচ্ছেন তারা গার্মেন্টস ভিসা নিয়ে রোমানিয়া যেতে পারবেন


    রোমানিয়ায় কাজের বেতন কত

    আপনারা যারা কাজ করতে ইচ্ছুক তারা আমাদের কাজের বেতন সম্পর্কে জানতে চান। কেননা রোমানিয়াতে আপনারা অর্থ উপার্জন করার জন্য যাবেন সেক্ষেত্রে আপনাদের সকলের রোমানিয়ায় কাজের বেতন সম্পর্কে জানা উচিত। আসুন জেনেনি রোমানিয়ার কাজের বেতন সম্পর্কে।

    রোমানিয়াতে গিয়ে একজন শ্রমিক মাসে 400 থেকে 500 ডলার আয় করে থাকেন। যা বাংলাদেশি টাকায় প্রায় 38 থেকে 40 হাজার পর্যন্ত। রোমানিয়া কাজের উপর ভিত্তি করে বেতন নির্ধারণ করা হয়ে থাকে। যারা ভালো কাজ করতে পারেন তাদের বেতন আরো বেশি। আশা করি আপনারা রোমানিয়ার কাজের বেতন সম্পর্কে বুঝতে পেরেছেন।


    বিদেশ যাওয়ার জন্য কোন ব্যাংক লোন দেয় দেখে নিন


    রোমানিয়া কবে সেনজেন হবে

    রোমানিয়া সেনজেন ভুক্ত কান্ট্রি কবে হবে এই বিষয় নিয়ে এখনও নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না তবে খুব শীঘ্রই সেনজেনভুক্ত একটি কান্টি হবে বলে জানা যাচ্ছে বিভিন্ন পত্রিকাতে। বর্তমানে এটি একটি ন্যাটোর সদস্য একটি দেশ। এদেশের স্বাধীনতার আগে অটোম্যান সাম্রাজ্যের অংশ ছিল। রোমানিয়া হলো ইউরোপীয় ইউনিয়নের মধ্যে জলপূর্ণ একটি দেশ। তবে আশা করা যায় খুব তাড়াতাড়ি রোমানিয়া একটি সেনজেনভুক্ত কান্ট্রিতে পরিণত হবে


    রোমানিয়া স্টুডেন্ট ভিসা

    রোমানের স্টুডেন্ট ভিসার মাধ্যমে আপনি রোমানিয়াতে ফ্রিতে বসবাসের সুযোগ পাবেন এবং সেখানকার বিশ্ববিদ্যালয়সহ বিভিন্ন ইউনিভার্সিটি তে পড়াশোনা করার সুযোগ পাবেন এবং পাশাপাশি আপনি পার্ট টাইম জব করতে পারবেন। তবে রোমানিয়া স্টুডেন্ট ভিসার জন্য আপনার খরচ হতে পারে 70 থেকে 100 পর্যন্ত। রোমানিয়া স্টুডেন্ট ভিসার জন্য আপনাকে বাংলাদেশের অথবা দিল্লিবাসীর মাধ্যমে যোগাযোগ করে রোমানিয়ায় স্টুডেন্ট ভিসার জন্য আবেদন করতে পারবেন


    রোমানিয়া কাজের ভিসা

    বর্তমানে অনেক ক্যাটাগরিতে রোমানিয়াতে কাজের লোক নিয়োগ দিচ্ছে। আগের অবস্থায় বাংলাদেশ থেকে খুব কম সংখ্যক লোক দিল্লি এম্বাসি হয়ে রোমানিয়ায় পাড়ি জমাতে কিন্তু বর্তমানে বাংলাদেশ থেকে কাজের ভিসা নিয়ে রোমানিয়ায় যাওয়া যাচ্ছে। রোমানিয়াতে গার্মেন্টসসহ ড্রাইভিং ভিসা এবং হোটেল কর্মী হিসেবে ব্যাপক ভাবে লোক নিয়োগ দিচ্ছে রোমানিয়া সরকার। তাই উপরোক্ত ক্যাটাগরি অনুযায়ী আপনি রোমানিয়া কাজের জন্য পাড়ি জমাতে পারবেন। রোমানিয়ায় কাজ করে আপনি মাসে 1 থেকে 2 লক্ষ টাকা ইনকাম করতে পারবেন


    রোমানিয়া যাওয়ার উপায়

    আগে বাংলাদেশ থেকে যাওয়ার মাধ্যম গুলো বন্ধ ছিল সেই কারণে বাংলাদেশের শ্রমিকরা বাংলাদেশ থেকে রোমানিয়া যাওয়ার উদ্দেশ্যে দিল্লি এম্বাসি এর মাধ্যমে যাওয়া লাগত। কিন্তু বর্তমানে বাংলাদেশে থেকেই এখন রোমানিয়া যাওয়া যাচ্ছে সেই ক্ষেত্রে বাংলাদেশ থেকে ভিসা কার্যক্রম সবগুলোই করতে পারবেন। সেক্ষেত্রে আপনাকে বাংলাদেশ প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের বিভিন্ন সংস্থার সাথে যোগাযোগ করা লাগবে বিএমআইটি সহ বিভিন্ন কোম্পানি রয়েছে যেগুলো বাংলাদেশ সরকার হতে পরিচালনা করা হয়


    রোমানিয়া ভিসা ২০২২

    বর্তমানে বাংলাদেশ থেকে প্রায় সব দেশের ভিসা আবারো নতুন ভাবে চালু করেছে সে ক্ষেত্রে রোমানিয়া কাজের ভিসা সহ স্টুডেন্ট ভিসা এবং যাবতীয় কার্যক্রম বর্তমানে সচল আছে আপনারা যারা রোমানিয়ার ভিসা নিয়ে যেতে চান তারা বাংলাদেশের প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয় সংস্থা অথবা বাংলাদেশের ওয়েবসাইট এর মাধ্যমে ভিসার জন্য আবেদন করতে পারবেন। আমরা বাংলাদেশের ভিসা আবেদনের লিংক তিন করে দিব সেখান থেকে দেখে নিতে পারেন


    রোমানিয়া ভিসা আপডেট ২০২২

    বর্তমানে রোমানিয়া ভিসা চালু আছে এবং আপনি বিভিন্ন ক্যাটাগরির ভিসা নিয়ে পাড়ি জমাতে পারবেন। করোনার কারণে দীর্ঘ দেড় বছর যাবৎ যাবতীয় কার্যক্রম রোমানিয়ার সঙ্গে বন্ধ ছিল। কিন্তু বাংলাদেশে অথবা দিল্লির মাধ্যমে বর্তমানে বাংলাদেশের মানুষ রোমানিয়া যেতে পারছে তাই আপনি চাইলে রোমানিয়ায় ভিসা নিয়ে নতুনভাবে আবার যেতে পারবেন


    রোমানিয়া জব সার্কুলার

    ভ্রমণ নিয়ে বিভিন্ন কাজের উপর বর্তমানে লোক নিয়োগ দিচ্ছে বিশেষ করে গার্মেন্ট শ্রমিক শহর ড্রাইভিং এবং হোটেল হিসেবে কর্মী নিয়োগ দিচ্ছে সরকার। একটি জলপূর্ণ একটি দেশ এবং বিভিন্ন ইউরোপের সাথে তাদের ব্যবসায়িক লেনদেনের কারা জড়িত। তাই সেখানে জবের প্রতিনিয়ত চাহিদা তৈরি হচ্ছে তাই ড্রাইভিং সহ গার্মেন্টস এবং বিভিন্ন কোম্পানির ভিসা সার্কুলার দিয়েছে। তাদের ওয়েব সাইটগুলোতে আপনি খোঁজ করলেই এই সমস্ত ভিসার খবর পেয়ে যাবেন


    রোমানিয়া ভিসা চেক করার নিয়ম

    রোমানিয়ার ভিসা সম্পর্কের অনেকেরই ধারণা কম থাকে কিভাবে ভিসা চেক করতে হয় এবং কোন ওয়েবসাইটের মাধ্যমে ভিসা চেক করবেন অনেকেরই জানা থাকে না আপনি ভিসা হাতে পাওয়ার পরে কিছু মাধ্যম অবলম্বন করে আপনি ভিসা চেক করতে পারেন। আপনার রোমানিয়ার ভিসা সম্পর্কে যাবতীয় তথ্য সঙ্গে মিল করে আপনি এই লিংকের মাধ্যমে ভিসা চেক করতে পারবেনরোমানিয়া ভিসা চেক করার লিংক


    রোমানিয়া থেকে ফ্রান্স

    রোমানিয়া থেকে ফ্রান্সে যাওয়ার উপায় নিয়ে অনেকেই জানতে চেয়েছেন সেক্ষেত্রে আপনাকে কি সব মধ্যপন্থা অবলম্বন করা লাগতে পারে রোমানিয়া থেকে বিভিন্ন কান্ট্রিতে যাওয়ার জন্য বর্ডার ক্রস করে আপনি যেতে পারবেন। এটি একটি সম্পূর্ণ বৈধ একটি উপায় পন্থা অবলম্বন না করে আপনি ভিজিট ভিসা নিয়ে রোমানিয়া থেকে ফ্রান্সে যেতে পারবেন গিয়ে আপনি কিছুদিন কাজ করার পরে আপনি সেখানকার ভিসার জন্য আবেদন করতে পারবেন। তাই অবৈধ-পন্থা অবলম্বনে আপনি সরাসরি ভিজিট ভিসার মাধ্যমে ফ্রান্সে গিয়ে ভিসার জন্য আবেদন করতে পারবেন


    রোমানিয়া থেকে কোন কোন দেশে যাওয়া যায়

    রোমানিয়া থেকে ফ্রান্স ইতালি জার্মানি সহ বিভিন্ন কান্ট্রিতে যেতে পারবেন তবে সেক্ষেত্রে আপনাকে ভ্রমণ ভিসা নিয়ে সে দেশে পাড়ি জমাতে হবে তাছাড়া আপনি অবৈধভাবে গেলে আপনার একটি রিস্ক থেকেই যাই। তাই অবশ্যই বৈধ পন্থা অবলম্বন করে রোমানিয়া থেকে অন্য কোনো দেশে যাওয়ার চিন্তাভাবনা করবেন তা না হলে আপনাকে আবার সে দেশের পুলিশ বাসের দেশের আইন অনুযায়ী আপনাকে আবার দেশে ফেরত পাঠানো হতে পারে। তাই আপনি ভিজিট ভিসার মাধ্যমে রোমানিয়া থেকে বিভিন্ন কান্ট্রি তে গিয়ে সেখানে গিয়ে কাজ করতে পারবেন


    রোমানিয়া থেকে ফ্রান্স কিভাবে যাওয়া যায়

    রোমানিয়া থেকে ফ্রান্সে যেতে হলে আপনাকে ভিজিট ভিসার মাধ্যমে যেতে হবে এবং ফ্রান্সের ভিজিট ভিসার জন্য আপনাকে দুই মাস সময় দেয়া হবে এবং দুই মাসের মধ্যে আপনি কাজ করতে পারবেন এবং আপনি যদি পার্মানেন্টলি থাকার চিন্তা ভাবনা করেন তাহলে আপনাকে। সে দেশের এম্বাসি সঙ্গে যোগাযোগ করে আপনার একটি সমস্যার কথা তুলে ধরতে হবে এবং যদি সমস্যা ইসলাম দেখাতে পারেন তাহলে আপনি সে দেশের ভিসা পাওয়ার যোগ্য হবেন। আচ্ছা আপনার দেশের একটি রাজনৈতিক সমস্যার কথা বলে আপনি সে দেশের ভিসার জন্য অ্যাপ্লিকেশন করতে পারবেন


    রোমানিয়া যেতে কি কি ডকুমেন্ট প্রয়োজন

    আপনারা যারা রোমানিয়া যেতে চান তারা অনেক সময় প্রশ্ন করে থাকেন রোমানিয়া যেতে কি কি ডকুমেন্ট প্রয়োজন হয় সে সম্পর্কে। আসুন জেনেনি রোমানিয়া যেতে কি কি ডকুমেন্ট প্রয়োজন হয় সে সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য।

    • রোমানিয়া যেতে হলে আপনার অনেক কয়েকরকম ডকুমেন্টের প্রয়োজন হয়ে থাকবে। যেমন,
    • আপনার পাসপোর্ট এর প্রয়োজন হবে এবং সাথে ছয় মাসের বেশি মেয়াদ থাকতে হবে এবং ফাকা পেজ থাকতে হবে।
    • আপনার দুই কপি ছবির প্রয়োজন হবে রুমিয়া নেয়া যেতে হলে। ছবি সদ্যতোলা হতে হবে।
    • আপনার ব্যাংক স্টেটমেন্ট এর প্রয়োজন হবে।
    • রোমানিয়া যেতে হলে আপনার হেলথ ইন্সুরেন্স এর প্রয়োজন হবে।
    • আপনি যে কাজের জন্য রোমানিয়া যেতে চান সে কাজের উপর অভিজ্ঞতা সম্পর্কে ডকুমেন্টের প্রয়োজন হবে।
    • রোমানিয়া যেতে হলে আপনার এনআইডি কার্ড অথবা জন্ম নিবন্ধন কার্ড এর প্রয়োজন হবে।
    • রোমানিয়া যেতে হলে আপনার পুলিশ ক্লিয়ারেন্স এর ডকুমেন্ট লাগবে।
    • রোমানিয়া যেতে হলে আপনার করোনা কার্ড এর প্রয়োজন হবে।

    এসকল ডকুমেন্টগুলো থাকলে আপনি রোমানিয়া যেতে পারবেন কিছু কিছু ক্ষেত্রে অন্যান্য ডকুমেন্টের প্রয়োজন হতে পারে। আপনি যদি এজেন্সির মাধ্যমে জানতে হলে এজেন্সি আপনাদেরকে জানিয়ে দিবে কি কি ডকুমেন্ট প্রয়োজন হয়। আর আপনি যদি এই কোম্পানীর মাধ্যমে যান তাহলে কোম্পানি আপনাকে জানিয়ে দেবে কি কি ডকুমেন্ট এর প্রয়োজন হয় সে সম্পর্কে। আশা করি আপনারা বুঝতে পেরেছেন।


    রোমানিয়া টাকা বাংলাদেশের কত টাকা

    রোমানিয়া টাকা সমান বাংলাদেশি টাকার রেট কত এবিষয়ে অনেকে প্রশ্ন করে থাকেন তাই চলুন দেখে নেয়া যাক রোমানিয়া টাকা বাংলাদেশের কত টাকা হয়ে থাকে বাংলাদেশের টাকা সংক্ষেপে BDT বলা হয় এবং রোমানিয়ার কে RON বলা হয়। বাংলাদেশি 100 টাকা সমান রোমানিয়া 5.23 টাকা হয়


    রোমানিয়ার বর্তমান অবস্থা

    রোমানিয়ার বর্তমান অবস্থা আগের তুলনায় এখন স্বাভাবিক করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় সেদেশের সরকার ভালো ভূমিকা পালন করেছে। বর্তমানে করণা স্বাভাবিক। তাদের ফ্লাইট কার্যক্রমসহ শ্রমিক বিচার কার্যক্রম আবার নতুনভাবে চালু করেছে। তাই যারা রোমানিয়ায় যেতে চাচ্ছেন তারা এখন ভিসার জন্য আবেদন করতে পারবেন


    রোমানিয়া কোম্পানি

    রোমানিয়া গার্মেন্টস ব্যবসার পাশাপাশি এখন কোম্পানি ভিসা চালু করেছে। তাই আপনি কোম্পানি ভিসা নিয়ে আপনি সে দেশে গিয়ে বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করতে পারবেন। কনস্ট্রাকশন কম্পানি সহ বিভিন্ন কোম্পানি রয়েছে অথবা গার্মেন্টস ফ্যাক্টরি জন্য বিভিন্ন নিয়োগ কোম্পানি রয়েছে যেগুলোর মাধ্যমে আপনি কাজ পেতে পারেন খুব সহজেই। 


    রোমানিয়ার ভাষা

    ইউরোপীয় কান্ট্রির মধ্যে ধরা হয় রোমানিয়া রোমানিয়া ভাষা রোমিও এটি একমাত্র তাদের সরকারি ভাষা হিসেবে ধরা হয়। বর্তমানে সেনজেনভুক্ত কান্ট্রি হওয়ার বিষয়টি উল্লেখ করেছে সে দেশের বিভিন্ন গণমাধ্যম তবে এটি খুব শীঘ্রই হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। 


    রোমানিয়া জব ভিসা

    রোমানিয়া জব ভিসা নিতে হলে আপনাকে রোমানিয়ার ভিসা পাসপোর্ট তৈরি করে সেদেশের ওয়েবসাইটগুলোতে অ্যাপ্লিকেশন করতে হবে আপনার সিভি দিয়ে। এবং অবশ্যই আপনার পূর্বের কাজের অভিজ্ঞতা দেখাতে হবে সেই সিভিতে। এবং আপনার সিভি তে থাকা মেইল অনুযায়ী আপনাকে জানিয়ে দেয়া হবে অথবা ফোন নাম্বারে মেসেজ করে আপনাকে জানিয়ে দেওয়া হবে আপনি ভিসা ইনভিটেশন পাবেন কিনা। 



    একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

    Post a Comment (0)

    নবীনতর পূর্বতন